বঙ্গতাজ পরিবারের সমালোচনা করার অধিকার এদেশের কারো নেই!

0
300

বঙ্গতাজ পরিবারের সমালোচনা করার অধিকার এ বাংলাদেশের কারো নেই;

✍১৯৭১ সাল ২৫ মার্চ বঙ্গবন্ধু বন্দি পাকিস্তান সেনাবাহিনী র হাতে। বঙ্গবন্ধু র অবর্তমানে কে নেতৃত্ব দিবে তাও নির্ধারণ করা ছিল না।তবে দায়িত্ব অর্পিত হবে সে আশায় শহীদ বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমদ বসে থাকেন নি।নিজের কাধে দায়িত্ব তুলে নিলেন ভারত সরকারের প্রধান মন্ত্রীর সাথে গোপনে যোগাযোগ করেন সাহায্যের আহবান জানান।মুক্তিযুদ্ধাদের ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করেন রণক্ষেত্রে কি কৌশল হবে তা নির্ধারণ করেন।কূটনৈতিক মহলে তৎপরতা সৃষ্টি করেন বহিবিশ্বে প্রচার করার ব্যবস্থা করেন বাঙালি জাতির মুক্তির কথা যার সফলতা হিসেবে সোভিয়েত ইউনিয়নের দৃশ্যমান সাহায্য। অবশেষে বাঙালী জাতির মুক্তির স্বাধ পেলেন শহীদ বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমদের হাত ধরে।

বঙ্গতাজ পরিবার

✍দেশ স্বাধীন হলো বঙ্গবন্ধুর নিকট প্রধানমন্ত্রীত্ব হস্তান্তর করলেন তাজউদ্দীন আহমদ।

✍১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধুর অনুরোধে পদত্যাগ করতে বাধ্য হলেন।

✍১৯৭৫ সাল ষড়যন্ত্র কারীরা বঙ্গবন্ধুকে ঘিরে ছিল হত্যার পায়তারা করছিল প্রিয় নেতা বাচাতে ছুটে গেলেন বঙ্গবন্ধু তার কথা বিশ্বাস ই করলেন না। শহীদ বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমদ কে জাসদ সহ অনেক বড় দল গুলি আমন্ত্রণ জানিয়েছিল সভাপতি হবার কিন্তু প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধুর সাথে বেইমানি করবেন না বলেই রাজনীতি ত্যাগ করে নির্বাসন বেছে নিয়েছিল।

✍১৯৭৫ সাল এর পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশে আওয়ামীলীগ শব্দটি বলার অধিকার কারো ছিল না।সারা দেশে ঘুরে ঘুরে আওয়ামীলীগ দলটাকে পুনঃ প্রতিষ্ঠা করেন বঙ্গতাজের সহধর্মিণী সৈয়দা জোহরা তাজ।

✍১৯৮১ সাল দেশরত্ন শেখ হাসিনা কে সভাপতি করে দেশে আনলেন সৈয়দা জোহরা তাজ।

বঙ্গতাজ পরিবার

✍আফছার উদ্দিন আহমদ পদত্যাগ কেন করেছিল ভুলে যাবেন না।কেননা তিনি বঙ্গতাজের ভাই অন্যায় স্বীকার করে পদমর্যাদা র মোহ আকড়ে ধরেন নি।

✍২০০১ সাল বাংলাদেশের রাজনীতিতে চরম দুঃসময় ঢাকার রাজপথে লড়াই সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছিল সেই বঙ্গতাজের পুত্র আপনারা এমন অনেক ছবি দেখলেন যাতে নিজ কর্মীদের বাচাতে নিজ বুক পেতে দিয়েছেন।পন্যের মূল্য বৃদ্ধিতে রাস্তায় কালো কাপড় চোখে বেধে রাস্তায় অবস্থান নেন।

✍সুসময় চলমান তাজউদ্দীন আহমদের পুত্র পদত্যাগ করতে বাধ্য হলেন কেননা ষড়যন্ত্র কারীরা জানেন বঙ্গতাজের রক্ত যদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে থাকেন তবে তাদের সুবিধা হবে না।কলা কৌষলে হেয় অপমান করে পদত্যাগ করাতে বাধ্য করলেন।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ যখন আবার দুঃসময়ে পতিত হবে তখন হয়তো এই বঙ্গতাজ পরিবারের ই কেউ বঙ্গবন্ধুর পরিবারের পাশে দাঁড়াবেন। আজ আশরাফ থাকলে হয়তো অনেক বেশি কস্ট পেতেন, যারা সমালোচনা করছে তাদের যে কি? ভুলে যাচ্ছে বারবার। সিন্ডিকেট বানিয়েছে নেতা আর নেতা হয়েই অতীত ভুলে ধরা কে সরা জ্ঞান করছে।

Facebook Comments