খুলনা বিভাগ

খুলনা বিভাগ বাংলাদেশের আটটি বিভাগের মধ্যে একটি এবং এটি দেশের দক্ষিণ পশ্চিম দিকে অবস্থিত। ২০১১ সালের আদমশুমারী অনুয়ায়ী, বিভাগটির আয়তন ২২,২৮৫ বর্গ কিলোমিটার এবং জনসংখ্যা ১৫,৫৬৩,০০০ জন। খুলনা বিভাগের সদর দপ্তর খুলনা শহর। ঢাকা এবং চট্টগ্রামের পরে বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম শহর। খুলনা বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে রূপসা নদী এবং ভৈরব নদীর তীরে অবস্থিত। বাংলাদেশের প্রাচীনতম নদী বন্দরগুলোর মধ্যে খুলনা অন্যতম। খুলনা বাংলাদেশের অন্যতম শিল্প ও বাণিজ্যিক এলাকা হওয়ায় খুলনা শহরকে শিল্প নগরী হিসেবে ডাকা হয়। খুলনা শহর থেকে ৪৮ কি.মি. দূরে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সমুদ্র বন্দর মংলা সমুদ্র বন্দর অবস্থিত। পৃথিবী বিখ্যাত উপকূলীয় বন সুন্দরবন খুলনা বিভাগের দক্ষিণাংশে অবস্থিত। খুলনা বিভাগের খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরা জেলায় সুন্দরবনের বিস্তৃতি ঘটেছে। খুলনাকে সুন্দরবনের প্রবেশদ্বার বলা হয়। রাজধানী ঢাকা থেকে খুলনা শহরের দূরত্ব সড়কপথে ৩৩৩কি.মি.। রাজধানী সহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলের সংগে স্থলপথ, আকাশপথ, জলপথ ব্যবহার করা যায়। ১৯১২ সালে থেকে অত্র অঞ্চলে নদীপথে স্টিমার (স্টিমবোট) চলাচল করে।
প্রতিষ্ঠাকাল
১৯৪৭ এ দেশ ভাগের পর তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং রাজশাহী বিভাগ গঠিত হয়। বর্তমান খুলনা বিভাগ তখন রাজশাহী বিভাগের অন্তর্গত ছিলো এবং বরিশাল ছিলো ঢাকা বিভাগের অন্তর্গত। পরবর্তীতে ১৯৬০ সালে তৎকালীন রাজশাহী বিভাগের কুষ্টিয়া, যশোর ও খুলনা এবং ঢাকা বিভাগের বাখেরগঞ্জ নিয়ে খুলনা বিভাগের যাত্রা শুরু হয়।

ভৌগলিক অবস্থান
খুলনা বিভাগ এর পশ্চিমে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সীমানা, উত্তরে রাজশাহী বিভাগ, পূর্বে ঢাকা বিভাগ ও বরিশাল বিভাগ এবং দক্ষিণে বিখ্যাত ম্যানগ্রোভ বন নামে পরিচিত সুন্দরবন সহ বঙ্গোপসাগরের উপর তটরেখা রয়েছে। এটি গঙ্গা নদীর দ্বীপ বা গ্রেটার বেঙ্গল ডেল্টার একটি অংশবিশেষ। অন্যান্য নদীর মধ্যে রয়েছে মধুমতি নদী, ভৈরব নদী ও কপোতাক্ষ নদী। এছাড়াও অঞ্চলের বঙ্গোপসাগরের কয়েকটি দ্বীপ রয়েছে।

প্রশাসনিক জেলা
খুলনা বিভাগ ৫৯টি উপজেলা (উপবিভাজন) ও নিম্নলিখিত ১০টি জেলা (জিলা) নিয়ে গঠিত হয়েছে:
শিক্ষা
বিভাগ সহ উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানঃ

বিশ্ববিদ্যালয়
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
খুলনা মেডিকেল কলেজ
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
নর্থ ওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়
নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস টেকনোলজি
যশোর মেডিকেল কলেজ
কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ
কলেজ
ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ
সরকারি বি. এল. কলেজ
যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ
সরকারী এম. এম. কলেজ
সরকারি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, মাগুরা
সরকারি কে.সি কলেজ, ঝিনাইদহ
চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ
দর্শনা সরকারি কলেজ
কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ
আজম খান সরকারী কমার্স কলেজ
মিলেটারী কলেজিয়েট স্কুল (এমসিএসকে) খুলনা
সরকারী হাজি মোহাম্মদ মুহসিন কলেজ (খালিশপুর)
মেহেরপুর সরকারি কলেজ
স্কুল
খুলনা জিলা স্কুল
খুলনা কলেজিয়েট স্কুল
করোনেশন গভ. গার্ল স্কুল,
সরকারি দৌলতপুর মুহসিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়
যশোর ক্যান্টেন্টমেন্ট পাবলিক স্কুল,
যশোর জিলা স্কুল
কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
যশোর পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
মাগুরা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
খুলনা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
খুলনা মহিলা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
ঝিনাইদহ পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
কুষ্টিয়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
সাতক্ষীরা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
মাগুরা টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ
বিসিএমসি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি মহাবিদ্যালয়
ম্যানগ্রোভ ইন্সটিটিউট অব সাইন্স এন্ড টেকনোলজি
খান জাহান আলী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
সিটি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট
মাদ্রাসা
দারুল কুরআন সিদ্দিকীয়া কামিল মাদ্রাসা-খুলনা
সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা খুলনা
ফয়লাহাট আছিয়া কারামতিয়া সিনিয়র আলিম মাদ্রাসা- রামপাল, বাগেরহাট।
অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
খুলনায় ৬টি সমন্বিত সাধারণ ও বৃত্তিমূলক (আইজিভি) বিদ্যালয় রয়েছে এবং এবং ইউসেপ এর একটি টেকনিক্যাল স্কুল (অবহেলিত শিশুদের জন্য শিক্ষা), যা একটি অ-লাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে সেবা করে আসছে।

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি
খান জাহান আলী
প্রফুল্ল চন্দ্র রায়
কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার
আব্দুল হালিম
মেজর জেনারেল (অবঃ) এম মজিদুল-উল-হক এমপি
শ্রী বিরেন শিকদার এমপি, যুব ও ক্রিড়া প্রতিমন্ত্রী
শহীদ সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেন
সাহিত্যিক মোহাম্মদ লুৎফর রহমান
ফকির লালন শাহ
কবি ফররুখ আহমদ
কবি সৈয়দ আলী আহসান
কবি কাজী কাদের নেওয়াজ
ছড়াকার আবু সালেহ
মৃণালিনী দেবী – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এর স্ত্রী
কবি যতীন্দ্রমোহন বাগচী
বনানী চৌধুরী প্রথম মুসলিম চিত্রনায়িকা
ববিতা – চিত্রনায়িকা
মৌসুমী – চিত্রনায়িকা
সুচন্দা – চিত্রনায়িকা
চম্পা (অভিনেত্রী) – চিত্রনায়িকা
তানভীর মোকাম্মেল – চিত্রপরিচালক
আসিফ ইমরোজ – চিত্রনায়ক
হাবিবুল বাশার সুমন – সাবেক অধিনায়ক -বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
মাশরাফি বিন মুর্তজা – অধিনায়ক – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
তুষার ইমরান – সাবেক ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
সাকিব আল হাসান – ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
আব্দুর রাজ্জাক (ক্রিকেটার) – ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
সৈয়দ রাসেল – সাবেক ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
ইমরুল কায়েস – ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
রুবেল হোসেন ক্রিকেটার
এনামুল হক বিজয় – ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
জিয়াউর রহমান (ক্রিকেটার) – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
সৌম্য সরকার – ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
মোস্তাফিজুর রহমান (ক্রিকেটার) – ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
মেহেদী হাসান – বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল
সালমা খাতুন – অধিনায়ক – বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল
শুকতারা রহমান – প্রমিলা ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল
শারমিন রত্না – প্রমিলা ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল
রুমানা আহমেদ – প্রমিলা ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল
জাহানারা আলম – প্রমিলা ক্রিকেটার – বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল
মোহাম্মদ হামিদুর রহমান, বীরশ্রেষ্ঠ
নূর মোহাম্মদ শেখ, বীরশ্রেষ্ঠ
মিয়া আকবর হোসেন, আকবর বাহিনী প্রধান।